BGMEA DAILY DIGEST
News published in media related to RMG: Today’s RMG News

uploads/trade_daily/digest_photo_71_tv_edit__1611726449.jpg
একাত্তর টিভি
গেল বছরের তুলনায় পোশাক খাতে বৈদেশিক অর্ডার কমেছে ৪০ শতাংশ। উদ্যোক্তারা অনেক কিছুই শিখতে বাধ্য হয়েছেন এই করোনাকালে। পোশাক খাতের বর্তমান কঠিন বাস্তবতা এবং বছরের দ্বিতীয়ার্ধে অমিত সম্ভাবনা - এসব বিষয় নিয়েই একাত্তরকে বলেছেন বিজিএমইএ’র সভাপতি ড. রুবানা হক।
uploads/trade_daily/digest_photo_Ittefaq_NBR__1611726449.jpg

দৈনিক ইত্তেফাক
এনবিআরকে ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ তৈরির তাগিদ অর্থমন্ত্রীর কর আদায়ে গুরুত্ব দেওয়ার পাশাপাশি ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ তৈরির জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) প্রতি তাগিদ দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এক্ষেত্রে কিছু ত্রুটি-বিচ্যুতি আছে স্বীকার করে তিনি বলেন, চেষ্টা চলছে যাতে ব্যবসাবান্ধব করা যায়। ব্যবসায়ীদের সহায়তা করা গেলে এনবিআর শক্তিশালী হবে, রাজস্ব আদায়ও বাড়বে। গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় রাজস্ব ভবনে আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে (ভার্চুয়ালি) তিনি এসব কথা বলেন। অর্থমন্ত্রী বলেন, সবচেয়ে বেশি অভিযোগ এনবিআর নিয়ে। আপনাদের (এনবিআর কর্মকর্তাদের) ব্যবসায়ীদের চাহিদা পূরণ করতে হবে। তাহলে ব্যবসায়ীরাও এনবিআরের চাহিদা পূরণ করবে। একই সঙ্গে রাজস্ব আদায়ের বিষয়টিও মাথায় রাখার তাগিদ দিয়ে তিনি বলেন, কেবল ব্যবসায়ীরা জিতবে আর এনবিআর ঠকবে-তাও হবে না। তাদেরকেও (ব্যবসায়ীদের) দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হতে হবে।

uploads/trade_daily/digest_photo_FE_RMG_Sector__1611726449.jpg

The Financial Express
RMG sector relies on too few buyers A handful of buyers do business simultaneously with more than 300 local readymade garment (RMG) factories, underscoring the industry's major vulnerability, according to a joint-survey. Experts said the dependence on a small number of buyers is a major weakness not only for small-scale enterprises but also for large factories. When asked, BGMEA president Dr Rubana Huq said buyers' business practices during the pandemic put the industry in uncertainty. "...uncertainty over confirmed business, shipment, payment and work in progress, allocation of capacity, optimum management of supply chain and the use of resources and economic impact and business viability," she explained. "We do not want to name and shame any of the buyers, since we have a long history of working relationship with most of the buyers," the BGMEA chief said, the survival of 4.1 million workers, who are the fuel of the industry, is dependent on responsible sourcing behavior from brands and retailers, she added.

uploads/trade_daily/digest_photo_DS_Rohingya__1611726449.jpg

The Daily Star
Rohingya Return, GSP: Dhaka pins high hopes on Biden admin: Momen tells webinar Dhaka sees a ray of hope for Rohingya repatriation and restoring GSP facilities as new US President Joe Biden is focusing on promoting democratic institutions, human rights and is supportive of the developing countries' causes. "Our expectation from the Biden administration is indeed reasonably higher and we believe the US will again lead the world in achieving core values and principles," said Foreign Minister AK Abdul Momen. He said Bangladesh and the US have excellent trade relations and that has been proven even during the pandemic when Bangladesh supplied 6.5 million PPEs to the US market. Over 90 percent of Bangladesh's exports to the US is readymade garments, but it faces nearly 15.6 percent tariffs on average."Since the pandemic, to assist hard-hit US consumers of garments, the US may put a moratorium on its tariffs to Bangladesh exports for a period of three years and this will surely help," he said.

uploads/trade_daily/digest_photo_P_ALO_English__1611726449.jpg

প্রথম আলো English
Health insurance for RMG workers: Spending 1 taka will return 18 times Joint contribution one taka per day from garment worker and owner per day on health insurance will return as Tk 18. This was stated at the SNV-Prothom Alo virtual media cafe, emphasising the necessity of initiating health insurance for the physical and mental well-being of low-income garment workers. Hanifur Rahman, chairman of the BGMEA Standing Committee on Health Center said that insurance should be introduced to ensure workers’ mental peace of health security. He said, 75 per cent of a garment workers’ salary are spent as soon as s/he goes home. If they are sick, they don’t go for health care considering the treatment cost. Therefore, in the interest of factory production, the focus should be on ensuring healthy workers with mental peace. Hanifur Rahman said a portion of the owners' export earnings was deposited in the central fund.

uploads/trade_daily/digest_photo_0র্_পটবগসহটচ6-2101191820-400x210__1611726449.jpg

দৈনিক আমাদের অর্থনীতি
পরিবেশের ক্ষতি হবে না এমন ১১ খাতের রপ্তানিমুখী শিল্প উন্নয়নে তহবিল গঠন দেশের রপ্তানিমুখী শিল্পের সক্ষমতা বাড়াতে বিশেষ তহবিল গঠন করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এক হাজার কোটি টাকার এ তহবিল থেকে ৫ থেকে ৬ শতাংশ সুদে ঋণ নিতে পারবেন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা। বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র সিরাজুল ইসলাম জানান, আগে আমরা শুধু পাট ও পাটজাত পণ্যই রপ্তানি করতাম। এখন সে অবস্থা থেকে বেরিয়ে এসেছি। এ অবস্থাকে আরও শক্তিশালী করার লক্ষ্যে আমরা বিভিন্ন ধরনের বিনিয়োগের ব্যবস্থা করেছি। সে লক্ষ্যে আমাদের এ প্রকল্প। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, রপ্তানি শিল্পখাতে শক্তিশালী ও আধুনিক করতে ব্যবসায়ীদের বিশেষ এ ঋণের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এখনও গার্মেন্টসখাতে অধিকাংশ পণ্য আমদানি করতে হচ্ছে। এটা কমিয়ে আনার জন্য বিশেষ এ উদ্যোগ।

uploads/trade_daily/digest_photo_Share_Biz_kamal-1__1611726449.jpg

শেয়ারবিজ
অর্থমন্ত্রীর নেতৃত্বে ওয়ান স্টপ সেবা নিশ্চিতকরণে কমিটি ওয়ান স্টপ সার্ভিস নিশ্চিত করতে কমিটি গঠন করেছে সরকার। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালকে সভাপতি করে সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে ২১ সদস্যের কমিটি গঠন করে আদেশ জারি করা হয়েছে। ‘ওয়ান স্টপ সার্ভিস আইন, ২০১৮’ অনুযায়ী ওয়ান স্টপ সার্ভিস নিশ্চিত করতে এই কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে আদেশে উল্লেখ করা হয়। কমিটিতে সদস্য হিসেবে রয়েছেন শিল্প মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে নিয়োজিত মন্ত্রী, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে নিয়োজিত মন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা (বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ), তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের দায়িত্বে নিয়োজিত প্রতিমন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান, বাণিজ্য সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব, পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন সচিব, বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব, বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক, বাংলাদেশ রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ এলাকা কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প করপোরেশনের (বিসিক) চেয়ারম্যান, এফবিসিসিআই প্রেসিডেন্ট,ডিসিসিআই প্রেসিডেন্ট ও এমসিসিআই প্রেসিডেন্ট।

uploads/trade_daily/digest_photo_KK_Economy__1611726449.jpg

কালেরকন্ঠ
অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়াবে এ বছরই করোনার প্রভাব কাটিয়ে এ বছরের দ্বিতীয় ভাগে ঘুরে দাঁড়াবে বাংলাদেশ। তা সম্ভব হবে রপ্তানি ও রেমিট্যান্সের সাফল্যে। বিশ্ব অর্থনীতি নিয়ে প্রকাশিত জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ দক্ষিণ এশিয়ার দ্রুত প্রবৃদ্ধিশীল দেশ হলেও করোনার প্রভাবে ২০২০ সালে প্রবৃদ্ধি কমে হয়েছে মাত্র ০.৫ শতাংশ, যদিও ২০১৯ সালে প্রবৃদ্ধি হয় ৮.৪ শতাংশ। তবে আশা করা যায়, বাণিজ্য ও রেমিট্যান্সে ভর করে এ বছরের দ্বিতীয় ভাগে নিম্ন প্রবৃদ্ধি থেকে ঘুরে দাঁড়াবে বাংলাদেশ। ওই প্রতিবেদনে অর্থবছরের হিসাবে বাংলাদেশের যে প্রবৃদ্ধির চিত্র তুলে ধরা হয় তাতে দেখা যায়, ২০১৯-২০ অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি কমে হয়েছে ৪.৩ শতাংশ, ২০২০-২১ অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি আসবে ৫.১ শতাংশ এবং ২০২১-২২ অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি হবে ৭.৬ শতাংশ। ‘ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক সিচুয়েশন অ্যান্ড প্রসপেক্টাস ২০২১’ নামক এই প্রতিবেদন সম্প্রতি প্রকাশ করে জাতিসংঘের অর্থনীতি ও সমাজ বিষয়ক সংস্থা ডেসা।

uploads/trade_daily/digest_photo___1611726449.jpg

ইত্তেফাক
এ বছর বিশ্ব অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি হবে সাড়ে ৫ শতাংশ : আইএমএফ গত বছর ২০২০ সালে বড় সংকোচনের পর এ বছর বিশ্ব অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়ানোর পূর্বাভাস দিল আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)। সংস্থাটি উল্লেখ করেছে, বিশ্বব্যাপী করোনার ভ্যাকসিন অনুমোদনের ফলে অর্থনীতি নিয়ে আশার আলো দেখা যাচ্ছে; কিন্তু করোনার ভিন্ন প্রকরণ এবং নতুন করে ছড়িয়ে পড়ায় উদ্বেগ রয়েই গেছে। এ রকম ভিন্ন ধরনের অনিশ্চয়তার পরে এ বছর বিশ্ব অর্থনীতির প্রবৃদ্ধি সাড়ে ৫ শতাংশ পর্যন্ত হওয়ার পূর্বাভাস দিয়েছে আইএমএফ। গতকাল প্রকাশিত বিশ্ব অর্থনীতির হালনাগাদ পূর্বাভাস প্রতিবেদনে এ তথ্য উল্লেখ করা হয়েছে। গত অক্টোবরের পূর্বাভাসের চেয়ে শুন্য দশমিক ৩ শতাংশ বাড়িয়ে এবারের প্রতিবেদনটি প্রকাশ করা হলো। সংস্থাটির পূর্বাভাস অনুযায়ী আগামী বছর অর্থাত্ ২০২২ সালে প্রবৃদ্ধি কিছুটা কমে ৪ দশমিক ২ শতাংশে নেমে আসতে পারে। যদিও গত বছর (২০২০) বিশ্ব অর্থনীতি সাড়ে ৩ শতাংশ সংকোচন হয়েছিল।